নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইউরোপে জ্বালানি তেল সরবরাহে শীর্ষ রাশিয়া

রাজ টাইমস ডেস্ক : | প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ ১২:১৫; আপডেট: ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ ১২:১৬

রাশিয়ার নাখোদকা উপসাগর তীরে জ্বালানি তেল রফতানি টার্মিনাল কজনিমো ছবি: রয়টার্স

নিষেধাজ্ঞার প্রভাবে রাশিয়া থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি তলানিতে ঠেকবে বলে ধারণা করা হয়েছিল। কিন্তু গত বছর সমুদ্রপথে দেশটি থেকে আমদানি মাত্র ১২ শতাংশ কমেছে। এমনকি সমুদ্রপথে ব্লকটিতে জ্বালানি তেল সরবরাহের ক্ষেত্রে এখনো শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে রাশিয়া। খবর অয়েলপ্রাইস ডটকম।

মেরিটাইম খাতের ব্রোকারেজ প্রতিষ্ঠান বেনসেরো কস্তার দেয়া তথ্যানুযায়ী, ২০২২ সালে ইইউ রাশিয়া থেকে সমুদ্রপথে ৯ কোটি ৮৮ লাখ টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি করেছে, যা ২০২১ সালে ছিল ১১ কোটি ২৫ লাখ টন এবং ২০১৯ সালে ১২ কোটি ৮৫ লাখ টন।

গত বছর ইইউর সমুদ্রপথে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানির ২১ দশমিক ৯ শতাংশই রাশিয়া থেকে এসেছে। উত্তর সাগরীয় অঞ্চল থেকে এসেছে ১৭ শতাংশ এবং উত্তর আফ্রিকা থেকে ১৫ দশমিক ৪ শতাংশ।

এক বছরের ব্যবধানে উত্তর সাগর থেকে আমদানি ১৯ দশমিক ২ শতাংশ বেড়েছে এবং ২০১৯ সালের তুলনায় অনেক বেশি আমদানি হয়েছে। উত্তর আফ্রিকার দেশগুলো থেকে আমদানি বেড়েছে ৬ শতাংশ এবং পশ্চিম আফ্রিকার দেশগুলো থেকে ২৭ দশমিক ৫ শতাংশ। এদিকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানিতে বড় উল্লম্ফন দেখা দিয়েছে। ২০২২ সালে দেশটি ইউরোপে ৫ কোটি ১৪ লাখ টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল সরবরাহ করেছে, যা এর আগের বছরের চেয়ে ৪৩ দশমিক ১ শতাংশ বেশি এবং রেকর্ড সর্বোচ্চ।

তবে আমদানিতে এর চেয়েও বড় প্রবৃদ্ধি এসেছে আরব উপসাগর থেকে। এক বছরের ব্যবধানে এ অঞ্চল থেকে ইইউ জ্বালানি তেল আমদানি ৭৬ দশমিক ৪ শতাংশ বাড়িয়েছে, যা মহামারীপূর্ব অবস্থার চেয়েও বেশি।

বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান রেফিনিটিভের বরাত দিয়ে বানসেরো কস্তা জানায়, মূল্যবৃদ্ধি ও অর্থনৈতিক মন্দার ঝুঁকি সত্ত্বেও অপরিশোধিত জ্বালানি তেল বাণিজ্যের জন্য অত্যন্ত ইতিবাচক বছর ছিল ২০২২।

রেফিনিটিভের তথ্য বলছে, এক বছরের ব্যবধানে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বৈশ্বিক লোডিং বেড়েছে ৮ দশমিক ৫ শতাংশ। মোট লোডিংয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২০৪ কোটি ৭৩ লাখ টন, ২০২১ সালে যা ছিল ১৮৮ কোটি ৬৩ লাখ টন।

ইউরোপে রাশিয়ার রফতানি ১২ শতাংশ কমলেও মোট রফতানি ১০ দশমিক ৩ শতাংশ বেড়েছে। রফতানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২০১ কোটি ৮৫ লাখ টনে। এটি মহামারীপূর্ব রফতানির চেয়ে কিছুটা কম।

একইভাবে যুক্তরাষ্ট্রও রফতানিতে উল্লম্ফন দেখেছে, এক বছরের ব্যবধানে যা ২২ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া সৌদি আরবের রফতানি বেড়েছে ১৭ শতাংশ। তবে সে তুলনায় পশ্চিম আফ্রিকা ও উত্তর সাগরীয় অঞ্চলের মোট রফতানি গত বছর কমেছে।

চীন বিশ্বের শীর্ষ জ্বালানি তেল ব্যবহারকারী দেশ। গত বছর দেশটিতে জ্বালানিটির আমদানি ৩ দশমিক ৬ শতাংশ কমেছে। এর প্রধান কারণ করোনাসংক্রান্ত বিধিনিষেধে নিম্নমুখী চাহিদা। তবে দেশটি রাশিয়া থেকে বিপুল পরিমাণে জ্বালানি তেল আমদানি বাড়িয়েছে। এদিকে চীনে কমলেও ভারতের আমদানি ১১ দশমিক ৭ শতাংশ বেড়েছে।



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top