শিক্ষা উপকরণের দামে ঊর্ধ্বগতি বাড়েনি উপবৃত্তির মূল্যমান

রাজ টাইমস ডেস্ক : | প্রকাশিত: ১৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৮:১৪; আপডেট: ১৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৮:১৬

ছবি: বণিক বার্তার

স্কুল ব্যাগের বাজারেও পড়েছে দামের প্রভাব। দোকানিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ব্যাগের দাম প্রকারভেদে ৫০-২৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত ব্যাগ বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকায়। খবর বণিক বার্তার। 

তবে আগে যার দাম ছিল ৩৫০ টাকা তা এখন ৪০০ টাকায় এবং ৫০০ টাকার ব্যাগ ৫৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে চীন থেকে আমদানি করা ব্যাগের দাম এখনো অপরিবর্তিত রয়েছে।

নতুন চালান এলে দাম বাড়তে পারে। প্রায় একইভাবে বেড়েছে জ্যামিতি বক্স, ফাইলসহ অন্যান্য স্টেশনারি পণ্যের দাম। ২৫-৩০ টাকার ফাইলের দাম এখন ৪০-৫০ টাকা; ৩০-৩৫ টাকার রঙ পেন্সিল এখন ৮০-৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ১০০ টাকা দামের স্ট্যাপলার মেশিন ১২০ টাকায়, ১১০ টাকার জ্যামিতি বক্স বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়।

বাজারে কলম-পেন্সিল, ইরেজার ও শার্পনারের দাম আগের চেয়ে বাড়লেও এখনো তা সাধ্যের মধ্যে রয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তারা জানান, এসব উপকরণের মূল্যবৃদ্ধির হার ৫-১০ ভাগ। এ বিষয়ে মো. অনিক নামের এক দোকানি বলেন, ‘এগুলোর পাইকারি দাম ডজনে ২-৩ টাকা বেড়েছে; শতকরার হিসাবে ৫-১০ ভাগ। তাই খুচরা দাম না বাড়িয়ে আমরাই ঘাটতি নিচ্ছি।’

নীলক্ষেতে খাতা কিনতে আসা আব্দুল মোমিন নামের এক শিক্ষার্থী বণিক বার্তাকে বলেন, ‘১০০ টাকা নিয়ে দুটি কিনতে এসেছিলাম। এসে দেখি এ টাকায় একটি খাতাও মিলছে না। পরে ৩০০ পেজের একটা নোট খাতা কিনেছি। দাম না কমলে আগামীতে পড়াশোনার খরচ চালিয়ে যাওয়া খুবই কষ্টকর হবে।’

বর্তমানে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তি দিচ্ছে সরকার। বৃত্তির পরিমাণের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘গত কয়েক বছরে বৃত্তির পরিমাণ বাড়ানো না হলেও বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থী সংখ্যা অনেক বেড়েছে। তবে বর্তমানে বৃত্তির পরিমাণ বাড়ানোর বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের নির্দেশনা আসেনি। সরকার যেহেতু আর্থিকভাবে চাপে রয়েছে, এ সময়ে বিষয়টি অগ্রাধিকার পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক কম।’



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top