ভারতের বিহারে ঈদের দিন মুসলিম শিক্ষকদের ট্রেনিং!

রাজ টাইমস ডেস্ক : | প্রকাশিত: ৯ এপ্রিল ২০২৪ ১৯:০৮; আপডেট: ৩০ মে ২০২৪ ১৬:৩৫

ছবি: ফাইল

ভারতের বিহারে ঈদের দিন মুসলিম শিক্ষকদের ট্রেনিং রাখা হয়েছে। যার ফলে ঈদ উৎসবে শামিল হতে পারবেন না তারা। তাদেরকে এদিন কর্মস্থলে উপস্থিত থাকতে হবে। এ নিয়ে ভারতজুড়ে চলছে সমালোচনা।

ইন্ডিয়া টুডে ও ইন্ডিয়া টিভির খবরে বলা হয়েছে, নিজের সিদ্ধান্তের জেরে সর্বদাই খবরের শিরোনামে থাকেন বিহারের উচ্চশিক্ষা সচিব কে কে পাঠক। এবার ঈদুল ফিতরের দিন বিহারের শিক্ষকদের জন্য একটি ট্রেনিংয়ের নির্দেশিকা জারি করেছেন তিনি। যা নিয়ে ইতোমধ্যেই বিতর্ক শুরু হয়েছে।

ঈদের দিন মুসলিম শিক্ষকদের ট্রেনিং রাখায় মুসলিমদের সংগঠন ইমারত শরিয়ার তরফ থেকে ইতোমধ্যেই মুখ্য সচিবকে একটি চিঠি লেখা হয়েছে। তীব্র আপত্তি জানিয়েছে এই সংগঠন।

ইমারত শরিয়ার মহাসচিব মুহাম্মদ সিলভি আল কাসেমি চিঠিতে লিখেছেন, '৮ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া আবাসীয় প্রশিক্ষণের তারিখ বদল করে দেওয়া হোক। মুলসিমদের সবচেয়ে বড় উৎসবের সময় দেশজুড়ে সরকারি ছুটি থাকবে। অথচ আবাসীয় প্রশিক্ষণের জেরে বিহারের মুসলিম শিক্ষকরা ঈদ পালন করতে পারবেন না। তাদের কর্মস্থলে উপস্থিত থাকতে হবে।'

বিহারের শিক্ষা সচিবের নির্দেশনা অনুযায়ী, ৮ এপ্রিল থেকে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত বিহারে চলবে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ। ছয় দিনের ট্রেনিংয়ে ১৯ হাজারের বেশি শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। বিহারের ছয় লাখ শিক্ষককে ট্রেনিং দেওয়ার টার্গেট নেয়া হয়েছে। তবে ট্রেনিং সেন্টারের সংখ্যা কম হওয়ার কারণে এক সঙ্গে শুধু ১৯ হাজার শিক্ষকের ট্রেনিংয়ের দিন নির্ধারিত হয়েছে।

ভারতে আজ সন্ধ্যায় চাঁদ দেখা গেলে কাল বুধবার ঈদুল ফিরত উদযাপিত হবে। যদি চাঁদ দেখা না যায় তাহলে ঈদ উদযাপিত হবে বৃহস্পতিবার। তবে প্রশিক্ষণ থাকায় অনেক মুসলিম শিক্ষকই ঈদের খুশিতে শামিল হতে পারবেন না।

মুহাম্মদ সিলভি আল কাসেমি চিঠিতে লিখেছেন, ঈদের দিন কী ভাবে ট্রেনিং নিতে পৌঁছবেন মুসলিম শিক্ষকরা? পবিরারের সঙ্গে এই খুশির উৎসবে শামিল হতে পারবেন না তারা? সরকারের কাছে আমার আবেদন, আবাসীয় ট্রেনিংয়ের তারিখ বদল করা হোক, যাতে মুসলিম শিক্ষকরা পরিবারের সঙ্গে ঈদুল ফিতরে অংশ নিতে পারেন।



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top