সাংগঠনিক সহসাংগঠনিক সম্পাদকদের কড়া বার্তা হাইকমান্ডের, কমিটি হবে যোগ্য ও আন্দোলনমুখী নেতৃত্বে, সময়সীমা ৩০ ডিসেম্বর, ব্যর্থ হলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা

পকেট নয়, কাউন্সিলে হবে তৃণমূল কমিটি

রাজটাইমস ডেস্ক | প্রকাশিত: ১৪ অক্টোবর ২০২১ ০৭:৪৮; আপডেট: ২২ অক্টোবর ২০২১ ১৯:২৫

ফাইল ছবি

তৃণমূল বিএনপিতে আর পকেট কমিটি দেখতে চান না দলের হাইকমান্ড। কাউন্সিলের মাধ্যমেই নেতৃত্ব নির্বাচন করতে কড়া বার্তাও দেওয়া হয়েছে। প্রতিকূল পরিবেশেও কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি গঠনের দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কাউন্সিল করা একেবারেই সম্ভব না হলে অন্ততপক্ষে কর্মিসভা করতে হবে। কেন্দ্র নয়, মাঠপর্যায় থেকেই সব কমিটি ঘোষণা করতে হবে। এ প্রক্রিয়ায় বিএনপির অসম্পূর্ণ সব ওয়ার্ড/ইউনিয়ন, থানা/উপজেলা, পৌর ও সাংগঠনিক জেলা কমিটি গঠন করার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আন্দোলনমুখী নেতৃত্বে এসব কমিটি গঠন করতে হবে। ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যে সাংগঠনিক জেলার সব ইউনিটের কমিটি গঠনের দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়। কমিটি গঠনে কারও গাফিলতি প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক ও সহসাংগঠনিক সম্পাদকদের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠকসূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। বৈঠকে লন্ডন থেকে ভার্চুয়ালি সভাপতিত্ব করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। অন্যদিকে রাজধানীর নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদসহ বিভাগীয় সাংগঠনিক ও সহসাংগঠনিক সম্পাদকরা অংশ নেন। এ প্রসঙ্গে অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেন, ‘আমরা সাংগঠনিক বৈঠক করেছি। দলকে শক্তিশালী করতে বিএনপির অসম্পূর্ণ কমিটি কীভাবে করা যায় তা নিয়ে সবাই মতামত দিয়েছেন।’ বিএনপির সাংগঠনিক ও সহসাংগঠনিক সম্পাদক পর্যায়ের একাধিক নেতা জানান, হাইকমান্ডের দিকনির্দেশনা পাওয়ার পরই জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের দিকনির্দেশনামূলক বার্তা পাঠানো হয়েছে।
সাংগঠনিক ও সহসাংগঠনিক সম্পাদকরা দুই সপ্তাহের মধ্যেই জেলা সফর করবেন। সংশ্লিষ্ট জেলার সাংগঠনিক রিপোর্ট নেওয়া হবে। এরপর অসম্পূর্ণ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কবে কাউন্সিল বা কর্মিসভা করা যায় তার দিনক্ষণ নেওয়া হবে। সময়ে সময়ে এসব রিপোর্ট দলের হাইকমান্ডের কাছে পাঠানো হবে।

জানা যায়, রুদ্ধদ্বার বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কমিটি গঠনে ‘এক নেতা এক পদ’ কার্যকরেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই বার্তা দেওয়া হয়েছে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনেও। এ নিয়ে সাংগঠনিক সম্পাদক পর্যায়ের এক নেতা প্রশ্ন তুললে আরেক নেতা জানান, বিষয়টি সম্পর্কে অবগত বিএনপির হাইকমান্ড। নীতিনির্ধারকরাই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়- সংশ্লিষ্ট বিভাগের সাংগঠনিক ও সহসাংগঠনিক সম্পাদকরা আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সব জেলা সফর করবেন। জেলা নেতাদের নিয়ে বৈঠক করে সব ইউনিটের কমিটি গঠনের তারিখ নির্ধারণ করা হবে। এ ছাড়া কমিটি গঠনের জন্য একটি ‘ওয়ার্কশিট’ তৈরি করতে বলেছেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। যেখানে কমিটি গঠনের সব কর্মকান্ডের বিস্তারিত বর্ণনা থাকবে। ২০ অক্টোবরের মধ্যে এ ‘ওয়ার্কশিট’ হাইকমান্ডের কাছে জমা দিতে হবে। ইউনিট কমিটি তদারকির জন্য জেলা নেতাদের সমন্বয়ে একটি মনিটরিং সেল গঠনেরও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিএনপির একজন সাংগঠনিক সম্পাদক জানান, রুদ্ধদ্বার বৈঠকে সারা দেশের সাংগঠনিক কর্মকান্ড নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। মেয়াদোত্তীর্ণ সাংগঠনিক জেলা, থানা, উপজেলা, পৌরসহ সকল পর্যায়ের কমিটি ভেঙে নতুন নেতৃত্ব গঠনের সিদ্ধান্ত দিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। এসব কমিটি কাউন্সিলের মাধ্যমে করতে হবে। যাতে যোগ্য ও পরীক্ষিত নেতারা নেতৃত্ব পান। সূত্র জানান, বৈঠকে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের এক দফা দাবিতে আন্দোলন করার বিষয়ে মত দেন সাংগঠনিক ও সহসাংগঠনিক সম্পাদকরা। এজন্য তৃণমূলের কমিটি গঠনের কাজ ডিসেম্বরের মধ্যেই শেষ করার ব্যাপারে অঙ্গীকার করেন তারা। নেতারা বলেন, তৃণমূলকে শক্তিশালী করে আন্দোলন করতে পারলে তা সফল হবেই। এর আগে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব দুই দফায় ১৪ থেকে ১৬ সেপ্টেম্বর এবং ২১ থেকে ২৩ সেপ্টেম্বর দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকে নিয়ে মতবিনিময় সভা করেন। মোট ছয় দিনের ওই বৈঠকে বিএনপিকে বর্তমান সরকারের অধীন নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার পরামর্শ দেন নেতারা।
একই সঙ্গে নির্দলীয় সরকারের অধীনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করতে মত দেন। ওই বৈঠকের ধারাবাহিকতায় শুক্র ও শনিবারও পেশাজীবীদের সঙ্গে আলোচনায় বসে দলটি। দুই দিনে ৩২টি পেশাজীবী সংগঠনের নেতারা ওই বৈঠকে অংশ নেন। বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, ‘আমরা ময়মনসিংহ বিভাগের সকল পর্যায়ের কমিটি ৩০ নভেম্বরের মধ্যে শেষ করতে বলেছি। এরই মধ্যে কাজ শুরু হয়েছে। আমরা একটু আগেই শুরু করেছি। আশা করি নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই অসম্পূর্ণ সব কমিটির কাজ সম্পূর্ণ হবে।’



বিষয়: বিএনপি


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top