ইডেন কলেজের বহিষ্কৃত ১২ ছাত্রলীগ নেত্রীসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ইডেন কলেজের বহিষ্কৃত ১২ ছাত্রলীগ নেত্রীসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

রাজটাইমস ডেস্ক | প্রকাশিত: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ২২:৩৯; আপডেট: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ২২:৪১

ফাইল ছবি

ইডেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় এবার বহিষ্কৃত ১২ ছাত্রলীগ নেত্রীসহ ১৯ জনকে আসামি করে লালবাগ থানায় মামলা দায়ের করেছেন স্থগিত কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিতু আক্তার। মামলায় আরও ৪-৫ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

শুক্রবার সমকালকে এসব তথ্য জানিয়েছেন লালবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এস এম মুর্শেদ। তিনি জানান, পরিদর্শক মো. শাহ আলমকে মামলা তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, রিতু আক্তার স্থগিত কমিটির সভাপতি তামান্না জেসমিন রিভা ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানার ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত।

বেআইনিভাবে জনতাবদ্ধে মারপিট করে জখম, হত্যাচেষ্টা, চুরি, ক্ষতিসাধন ও হুমকি প্রদান করার অপরাধে এ মামলা দেওয়া হয়েছে বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে আসামিরা হলেন- বহিষ্কৃত ১২ জন জেবুন্নাহার শিলা, সোনালী আক্তার, সুস্মিতা বাড়ৈ, কল্পনা বেগম, জান্নাতুল ফেরদৌস, আফরোজা রশ্মি, মারজানা ঊর্মি, সানজিদা পারভীন চৌধুরী, এসএম মিলি, সাদিয়া জাহান সাথী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফাতেমা খানম বিন্তি ও সাংগঠনিক সম্পাদক সামিয়া আক্তার বৈশাখী। বাকিরা হলেন- শেখ সানজিদা, রূপা দত্ত, মারিয়া, শারমিন, মনিকা তনচংগ্যা মিমি, মায়েদা বেগম মায়া ও তানজিলা আক্তার।

লালবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এস এম মুর্শেদ বলেন, ‘রিতু আক্তার মামলা দিয়েছেন। এর আগে জান্নাতুল ফৈরদৌসের কোর্টের মামলাও আমাদেরকে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দুটি বিষয়ই আমরা দেখছি।’

এ দিকে গত বুধবার জান্নাতুল ফেরদৌস বাদী হয়ে তামান্না জেসমিন রিভা ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানাসহ আটজনের বিরুদ্ধে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মোস্তফা রেজা নূরের আদালতে মামলার আবেদন করেন। আগামী ২৩ অক্টোবর সেই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

মামলায় বাকি ছয় আসামি হলেন- নুজহাত ফারিয়া রোকসানা, আয়েশা ইসলাম মিম, নূরজাহান, রিতু আক্তার, আনিকা তাবাসুম স্বর্ণা ও কামরুন নাহার জ্যোতি। মামলায় অজ্ঞাতপরিচয় আরও ২৫ থেকে ৩০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

চাঁদাবাজি, অনিয়ম ও সিট বাণিজ্য নিয়ে গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেওয়াকে কেন্দ্র করে সদ্য স্থগিত কমিটির শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন রিভা ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানার অনুসারীদের মারধর, হেনস্থার শিকার হন সহ-সভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌস। মারধর ও হেনস্থাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয় ক্যাম্পাস। উত্তপ্ত পরিস্থিতির এক পর্যায়ে দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন হয়। সংবাদ সম্মেলনের এক পর্যায়ে পাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন শাখা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ। পরে কমিটি স্থগিত ঘোষণা এবং বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির দায়ে ১২ জন নেত্রীকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবিতে আমরণ অনশনের ঘোষণা দেন বহিস্কৃতরা। পরে আওয়ামী লীগ নেতাদের আশ্বাসে তারা অনশন থেকে সরে আসেন।

সূত্রঃ সমকাল



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top