কলকাতা পর্যন্ত ট্রেন চলাচলের সিদ্ধান্তে রাজশাহীতে উচ্ছ্বাস, এবার বিমানের স্বপ্ন

রাজটাইমস ডেস্ক: | প্রকাশিত: ২৪ জুন ২০২৪ ০৯:৩৪; আপডেট: ১৯ জুলাই ২০২৪ ০২:১০

ছবি: সংগৃহীত

রাজশাহী থেকে কলকাতা পর্যন্ত চলবে ট্রেন। গতকাল শনিবার ভারতের নয়াদিল্লির হায়দরাবাদ হাউসে সে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠকের পর এ ঘোষণা আসে। গণমাধ্যমে এ খবর আসতেই উচ্ছ্বাস দেখা দিয়েছে রাজশাহীতে। দীর্ঘদিনের এ চাওয়া পূরণ হতে যাওয়ায় খুশি রাজশাহীর মানুষ। দ্রুতই এ পথে ট্রেন চালু হবে এমন আশা করছেন তাঁরা।

রাজশাহী অঞ্চল থেকে এখন প্রতিদিনই শত শত রোগী চিকিৎসার জন্য ভারতে যান। আত্মীয়তার কারণেও প্রতিদিন অনেক মানুষ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে যান। আমদানি-রপ্তানির ব্যবসায়ীদেরও কলকাতাসহ বিভিন্ন রাজ্যে যেতে হয়। সরাসরি ট্রেন চালু হলে সবার দুর্ভোগ আর ভোগান্তি কমে যাবে। তাই প্রতিশ্রুত ট্রেন দ্রুতই চালুর দাবি জানিয়েছেন রাজশাহীর বিশিষ্টজনেরা।

সামাজিক সংগঠন রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জামাত খান বলেন, ‘রাজশাহী-কলকাতা সরাসরি ট্রেন চালুর জন্য আমরা বিভিন্ন সময় দাবি জানিয়েছি। অবশেষে এই ট্রেন চালু হতে যাচ্ছে। সরকারপ্রধান, রাজশাহীর মেয়রসহ যাঁরা এই প্রক্রিয়াটা এগিয়ে নিয়ে গিয়েছেন, আমরা রাজশাহীবাসী তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞ। রাজশাহী অঞ্চলের অসংখ্য রোগী এই ট্রেনে স্বস্তির সঙ্গে চিকিৎসার জন্য ভারতে যেতে পারবে। তাদের জন্য এই ট্রেন যে কতটা উপকারে আসবে, সেটা বলে বোঝানো কঠিন। ট্রেনটি চালুর সিদ্ধান্তে আমরা খুব খুশি।’

রাজশাহী শিল্প ও বণিক সমিতির সভাপতি মাসুদুর রহমান রিংকু বলেন, ‘চুয়াডাঙ্গার দর্শনা কিংবা যশোরের বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে যেতে হলে রাজশাহী থেকে খুলনাগামী ট্রেনে উঠতে হয়। সে ট্রেনে টিকিট পাওয়া যায় না ভারতগামী মানুষের ভিড়ে। নতুন ট্রেন সরাসরি কলকাতা পর্যন্ত চলবে বলে অনেক উপকার হবে। রোগীদের উপকার তো হবেই, এর সঙ্গে দুই দেশের ব্যবসায়ীরাও উপকৃত হবে। বিশেষ করে স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানিকারকেরা সহজে যাতায়াত করতে পারবেন। ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়বে। ভারতের সঙ্গে যত বেশি যোগাযোগ সহজ হবে, তত বেশি এ অঞ্চলের ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নয়ন হবে।’

এই ট্রেন চলাচলের ফলে পর্যটনেও ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করেন পর্যটকদের সংগঠন রাজশাহী ট্যুর ম্যুরল্যান্ডের প্রতিষ্ঠাতা ডা. মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, ‘চিকিৎসা, আত্মীয়তা, ব্যবসা ও পর্যটন—এই চার কারণে ভারতে যেতে হয়। রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন চালু হবে শুনে আমরা যারা ভ্রমণ পছন্দ করি, তারাও অনেক খুশি। অচিরেই যেন এটি চালু হয়।’

রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন চালু করা রাজশাহীর সিটি করপোরেশনের (রাসিক) মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের নির্বাচনী ইশতেহারেও ছিল। এটি বাস্তবায়নে দীর্ঘদিন ধরেই তিনি দৌড়ঝাঁপ করছেন। প্রতিশ্রুত ট্রেন চালুর সিদ্ধান্ত হওয়ায় এখন রাজশাহী-কলকাতা রুটে বিমান চালানোর স্বপ্ন দেখছেন তিনি।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘রাজশাহী থেকে কলকাতা সরাসরি ট্রেন ও বিমান যোগাযোগ চালু করা আমার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির মধ্যে অন্যতম একটি। এ পথে সরাসরি ট্রেন ও বিমান চালু করতে দীর্ঘদিন ধরে প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। অবশেষে সেই কাঙ্ক্ষিত ট্রেন যোগাযোগ চালু হতে যাচ্ছে। এই ট্রেন সার্ভিস চালু হলে রাজশাহী তথা উত্তরাঞ্চলের মানুষেরা ব্যাপকভাবে উপকৃত হবে। ভবিষ্যতে রাজশাহী-কলকাতা সরাসরি বিমান চালুর ব্যাপারে আমি প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখব।’

রাসিক মেয়র আরও বলেন, ‘রাজশাহীর এখনকার বিমানবন্দর দিয়েই কলকাতার সঙ্গে প্যাসেঞ্জার বিমান চালানো সম্ভব। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য রাশিয়া থেকে ইউরেনিয়াম আনার জন্য এ বিমানবন্দর প্রস্তুত করা হবে। তখন এটি এমনিতেই আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত হবে। কার্গো বিমান চালানো যাবে। ভারতের সঙ্গে ছোট-বড় সব ধরনের প্যাসেঞ্জার বিমানও চালানো যাবে।’



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top