ঈদের দিনে করণীয় ও বর্জনীয়

রাজ টাইমস ডেস্ক : | প্রকাশিত: ১০ এপ্রিল ২০২৪ ২০:১৫; আপডেট: ৩০ মে ২০২৪ ১৪:৫৬

- ছবি - ইন্টারনেট

আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) বাংলাদেশে ঈদুল ফিতর উদযাপন হবে। ঈদুল ফিতর মুসলিম জাতির সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। এটি মুসলমানদের জন্য পারস্পরিক ভেদাভেদ ভুলে, হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে ভ্রাতৃত্ব ও সৌহার্দ্য-সম্প্রীতির দিন।

এই দিনের বেশ কিছু আদব ও সুন্নত যেমন রয়েছে, তেমনি সুন্নাহবহির্ভূত কাজকর্ম থেকে বেঁচে থাকারও প্রয়োজন রয়েছে। এখানে ঈদের দিনের করণীয় ও বর্জনীয় কাজগুলো তুলে ধরা হলো।

ঈদের দিনে করণীয়

১. গোসল ও পবিত্রতা অর্জন করা
ঈদের নামাজের জন্য গোসল করা ও মিসওয়াক করা সুন্নত। আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, নবী কারিম (স.) ঈদুল ফিতর ও আজহার দিন গোসল করতেন। (বুখারি: ১/১৩০)

২. উত্তম পোশাক পরিধান করা
ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার দিন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন সুন্দর ও সাধ্যের ভেতরে সবচেয়ে উত্তম পোশাক পরিধান করা সুন্নত। ইবনুল কাইয়িম (রহ.) বলেন, নবীজি (স.) দুই ঈদের দিন সবচেয়ে সুন্দর ও উত্তম জামাটি পরিধান করতেন। তাঁর একটা বিশেষ পোশাক ছিল, যা তিনি দুই ঈদে ও জুমায় পরিধান করতেন। হাদিসে এসেছে, নবী কারিম (স.) প্রতিটি ঈদে ডোরাকাটা পোশাক পরিধান করতেন। (বায়হাকি: ৬৩৬৩)

৩. ঈদগাহে যাওয়ার আগে পানাহার করা
আনাস (রা.) বলেন, নবীজি (স.) ঈদুল ফিতরের দিন সকালে কিছু খেজুর খেতেন। অন্য এক বর্ণনা মতে, তিনি বিজোড় সংখ্যক খেজুর খেতেন। (বুখারি: ৯৫৩)

৪. ঈদগাহে যাতায়াতের সময় তাকবির বলা
ঈদগাহে যাতায়াতের সময় ঈদুল ফিতরের দিন তুলনামূলক নিম্নস্বরে তাকবির বলা এবং ঈদুল আজহার দিন উচ্চৈঃস্বরে তাকবির পাঠ করা সুন্নত। ইমাম জুহরি থেকে বর্ণিত, নবীজি (স.) ঈদুল ফিতরের দিন তাকবির পাঠ করতে করতে ঈদগাহের দিকে গমন করতেন। নামাজ পড়া পর্যন্ত এই তাকবির অব্যাহত রাখতেন। নামাজ শেষ হলে তাকবির পাঠ বন্ধ করে ফেলতেন। (সিলসিলাতুল আহাদিস আস-সহিহা: ১৭১)

৫. ঈদগাহে আসা-যাওয়ার রাস্তা পরিবর্তন করা
ঈদগাহে যাতায়াতের রাস্তা পরিবর্তন করা সুন্নত। যাওয়ার সময় এক রাস্তা দিয়ে গমন করা। আর প্রস্থানের সময় অন্য রাস্তা ব্যবহার করা সুন্নত। জাবের ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) বলেন, নবীজি (স.) ঈদের দিন ঈদগাহে আসা-যাওয়ার রাস্তা পরিবর্তন করতেন। (বুখারি: ৯৮৬)

৬. হেঁটে ঈদগাহে যাওয়া
কোনো ধরনের অপারগতা ও অক্ষমতা না থাকলে, হেঁটে ঈদগাহে গমন করা সুন্নত। আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুল (স.) হেঁটে ঈদগাহে গমন করতেন এবং হেঁটে ঈদগাহ থেকে প্রত্যাগমন করতেন। (তিরমিজি: ১২৯৫)

৭. ঈদগাহে যেতে শিশুদের সঙ্গে নেওয়া
আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (স.) দুই ঈদের দিন ঈদগাহে যাওয়ার সময় ফজল ইবনে আব্বাস, আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস, আব্বাস, আলী, জাফর, হাসান, হুসাইন, উসামা বিন জায়দ, জায়েদ বিন হারিসা, আইমান ইবনে উম্মু আইমান রাদিয়াল্লাহু আনহুমকে সঙ্গে নিয়ে উচ্চৈঃস্বরে তাকবির ও তাহলিল পাঠ করতে করতে বের হতেন। অতঃপর তিনি কামারদের রাস্তা দিয়ে ঈদগাহে উপস্থিত হতেন এবং প্রত্যাবর্তনের সময় মুচিদের রাস্তা দিয়ে ঘরে আসতেন। (সুনানে কুবরা বায়হাকি: ৬৩৪৯)

৮. ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করা
ঈদের দিন একে অপরের সঙ্গে সাক্ষাৎ হলে শুভেচ্ছা বিনিময় করা সুন্নত। হাদিসে বর্ণিত আছে, জুবায়ের বিন নুফাইর (রা.) বলেন, নবীজি (স.) ও সাহাবায়ে কেরাম ঈদের দিন পরস্পর সাক্ষাৎ হলে বলতেন তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়ামিন কুম অর্থাৎ আল্লাহ আমার ও আপনার যাবতীয় ভালো কাজ কবুল করুক। (ফাতহুল কাদির: ২/৫১৭)

আরও পড়ুন: ঈদের দিন কোলাকুলি করা কি সুন্নত?

৯. ঈদের খুতবা শোনা
ঈদের নামাজ শেষে খুতবা মনোযোগ সহকারে শোনা। হাদিসে এসেছে, আবদুল্লাহ বিন সায়িব (রা.) বলেন, নবীজি (স.)-এর সঙ্গে আমি ঈদগাহে উপস্থিত হলাম। এরপর তিনি আমাদের নামাজ পড়িয়েছেন। অতঃপর তিনি বলেন, আমরা নামাজ শেষ করেছি। যার ইচ্ছা সে খুতবা শোনার জন্য বসবে, আর যে চলে যেতে চায়, সে চলে যাবে। (ইবনে মাজাহ: ১০৭৩)

১০. ঈদগাহ থেকে ফিরে নফল আদায় করা
ঈদের নামাজের আগে-পরে ঈদের নামাজের স্থানে যেকোনো ধরনের নফল নামাজ আদায় করা মাকরুহ। ঈদের নামাজের পরে ঈদগাহ থেকে বাড়ি ফিরে দুই রাকাত নফল আদায় করা সুন্নত। আবু সাঈদ খুদরি (রা.) বলেন, নবী কারিম (সা.) ঈদের নামাজের আগে কোনো নামাজ পড়তেন না। তবে নামাজের পর ঘরে ফিরে দুই রাকাত নামাজ আদায় করতেন। (ইবনে মাজাহ: ১২৯৩)

ঈদের দিনে বর্জনীয়

১. বিজাতীয় সংস্কৃতি কাম্য নয়
ঈদুল ফিতরের মতো ধর্মীয় উৎসবগুলো মুসলমানদের জন্য নিজস্ব সংস্কৃতিতে সম্পন্ন করা বাঞ্ছনীয়। বিজাতীয় সংস্কৃতি পালন করা কোনোভাবেই কাম্য নয়। কেননা এ ব্যাপারে কঠোর নিষেধাজ্ঞা এসেছে। ইবনে ওমর (রা.) বলেন, রাসুল (স.) বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো কওমের (সম্প্রদায়ের) অনুসরণ-অনুকরণ করবে সে তাদের দলভুক্ত হবে। (আবু দাউদ: ৩৯৮৯)

২. বিদআত থেকে সতর্ক থাকা
ঈদের দিন অনেকে না জেনে কবর বা মাজারে গিয়ে বিদআতে লিপ্ত হয়ে পড়ে। এটি কোনোভাবেই কাম্য নয়। কবর জিয়ারত নিঃসন্দেহে একটি নেক আমল। কিন্তু ঈদের দিনে কবর জিয়ারতে বিশেষ সাওয়াব আছে বলে বিশ্বাস করা বা এটিকে একটি প্রথা বানিয়ে নেয়া শরিয়তসম্মত নয়। রাসুলুল্লাহ (স.) বলেছেন- ‘তোমরা আমার কবরে ঈদ উদযাপন করবে না বা ঈদের স্থান বানাবে না.. ‘ (আবু দাউদ: ২০৪২)

৩. অশ্লীলতার ব্যাপারে সতর্ক থাকা
সিয়াম সাধনার মাসে সবাই যেমন গুনাহর ব্যাপারে সতর্ক ছিল, ঠিক তেমনি সারাবছর থাকা প্রয়োজন। বিশেষ করে ঈদের দিনগুলোতে অশ্লীলতার ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হয়। কেননা ঈদ উপলক্ষে এগুলো বেশি প্রকাশিত হয়। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘এক শ্রেণির লোক আছে, যারা মানুষকে আল্লাহর পথ থেকে গোমরাহ করার উদ্দেশ্যে অবান্তর কথাবার্তা সংগ্রহ করে অন্ধভাবে এবং তাকে নিয়ে ঠাট্টা-বিদ্রূপ করে। এদের জন্য রয়েছে অবমাননাকর শাস্তি।’ (সুরা লুকমান: ৬)

৪. গান-বাজনা-সিনেমা থেকে দূরে থাকা
ঈদের দিনের একটি স্বাভাবিক গুনাহ হলো- গান-বাজনা শোনা ও এতে জড়িত হওয়া। শরিয়তে এটি নিষিদ্ধ এ ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই। আবার যদি হয় অশ্লীল গান বা সিনেমা তাহলে তো তা হারাম হওয়ার ব্যাপারে কোনো ভিন্নমত নেই। হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ (স.) বলেছেন, ‘আমার উম্মতের মাঝে এমন একটা দল পাওয়া যাবে যারা ব্যভিচার, রেশমি পোশাক, মদ ও বাদ্যযন্ত্রকে হালাল [বৈধ] মনে করবে।’ (বুখারি: ৫৫৯০)

৫. অপচয় না করা
অপচয় এমন খরচকে বলা হয় যার কোনো উদ্দেশ্য নেই, যার কোনো ফায়দা নেই। ঈদের দিনকে ঘিরে অনেকে অযথা খরচ করেন। অথচ আল্লাহ তাআলা অপচয় করতে নিষেধ করেছেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘আর তোমরা অপচয় করো না। নিশ্চয় তিনি অপচয়কারীদের ভালবাসেন না।’ (সুরা আনআম: ১৪১)

৬. ঈদের দিনের নিষিদ্ধ কাজ
ঈদের দিন মহান আল্লাহ সবাইকে মেহমানদারি করেন। এদিন নিজে খাওয়া এবং অন্যকে খাওয়ানোর দিন। তাই এদিন রোজা রাখা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। আবু সাঈদ (রা.) বলেন, রাসুল (স.) ঈদুল ফিতরের দিন ও কোরবানির ঈদের দিন রোজা পালন করা থেকে, সাম্মা ধরনের কাপড় পরিধান করা থেকে, এক কাপড় পরিধানরত অবস্থায় দুই হাঁটু তুলে নিতম্বের ওপর বসতে (কেননা এতে সতর প্রকাশ পাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে) এবং ফজর ও আছরের পর নামাজ আদায় করতে নিষেধ করেছেন। (বুখারি: ১৮৬৮; মুসলিম: ২৫৪৪)

উল্লেখ্য, ঈদের রাতে সাধ্যমতো নফল নামাজ, কোরআন তেলাওয়াত, জিকির-আজকার, দোয়া-দরুদ ইত্যাদি করা যায়। আবু উমামা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (স.) বলেন, যে ব্যক্তি দুই ঈদের রাতে আল্লাহর সন্তুষ্টিলাভের উদ্দেশ্যে ইবাদত করবে তার অন্তর ওই দিন মরবে না, যেদিন অন্তরসমূহ মুর্দা হয়ে যাবে। (ইবনে মাজাহ: ১৭৮২)



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top