জোভানের ফেসবুক পেজ গায়েব, পাওয়া যাচ্ছে না মাহিকেও

রাজটাইমস ডেস্ক: | প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ১৬:৫১; আপডেট: ৩০ মে ২০২৪ ১৫:৪৭

ছবি: সংগৃহীত

ঈদে উপলক্ষে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘রূপান্তর’ নাটক নিয়ে উত্তপ্ত সামাজিক মাধ্যম। নাটকটির মাধ্যমে দেশে ‘ট্রান্সজেন্ডার সংস্কৃতি’ প্রমোট করার অভিযোগ এনেছেন নেটিজেনরা। সেইসঙ্গে দিয়েছেন বয়কটের ডাক।

এ নাটকে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন অভিনেতা ফারহান আহমেদ জোভান। ফলে তার বিরুদ্ধে ছোড়া হয়েছে বয়কটের তীর। এমতাবস্থায় জোভান জানিয়েছিলেন ভবিষ্যতে দর্শক পছন্দ করেন না এরকম কাজ করবেন না। তবু নেটাগরিকদের হাত থেকে পাননি রক্ষা। গায়েব করে দেওয়া হয়েছে তার ১৯ লাখ অনুসারীর ফেসবুক পেজটি।

নাটকটিতে জোভান ছাড়াও অভিনয় করেছেন অভিনেত্রী সামিরা খান মাহি। ফলে তাকেও পড়তে হয়েছে তোপের মুখে। জোভানের পাশাপাশি নেটিজেনরা তার দিকে ছুড়ছিলেন কটাক্ষের তীর। এবার জোভানের পর তার ২৪ লাখ অনুসারীর ফেসবুক পেজটিও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

মাহির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে চান না উল্লেখ করে বলেন, বিষয়টি খুবই সেনসেটিভ। আমি এ নিয়ে এখন কোনো বিবৃতি দিতে চাইছি না।

এদিকে বয়কটের ডাক ওঠার পর জোভান বলেছিলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না নাটকটি নিয়ে কেন এমন সমালচনা করা হচ্ছে। নাটকটির ভিউ হয়েছিল নব্বই হাজার। তাহলে বাকি মানুষ তো দেখেনি। আমার মনে হয় না তারা দেখেই সমালোচনা করছে।’

নাটকটি নিয়ে দর্শকের এমন অপ্রত্যাশিত প্রতিক্রিয়ায় কিংকর্তব্যবিমূঢ় জোভান। তিনি বলেছিলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমি ঘোরের মধ্যে আছি। বুঝতে পারছি না কী হচ্ছে।’

এদিকে নাটকটিতে অভিনয়ের কারণে জোভানের বিরুদ্ধেও দেওয়া হয়েছে বয়কটের ডাক। ধুয়ে দেওয়া হচ্ছে তাকে। এরকম আচরণকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মনে করছেন অভিনেতা। তার ভাষায়, ‘এটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হতে পারে। কারণ সামগ্রিকভাবে কথা বলার চেয়ে ব্যক্তিগত আক্রমণটা বেশি হচ্ছে।’

তবে নেটিজনেদের এমন সমালোচনার মুখে জোভান সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দর্শক পছন্দ করেন না এমন কোনো চরিত্রে অভিনয় করবেন না তিনি। অভিনেতা বলেছিলেন, ‘যেহেতু মানুষ পছন্দ করছে না সেহেতু এসব আর করা যাবে না। এরপর থেকে এগুলো আর করব না।’

১৫ এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টায় উন্মুক্ত করা হয় ইউটিউবে প্রকাশ করা হয় ‘রূপান্তর’। হরমোনজনিত কারণে একজন মানুষের একা হয়ে যাওয়ার গল্প তুলে ধরা হয়েছে নাটকে। এটি নির্মাণ করেছেন রাফাত মজুমদার রিংকু। জোভান-মাহি ছাড়াও অভিনয় করেছেন সাবেরী আলম ও সমাপ্তি মাসুক।

জানা গেছে, গল্পটি মূলত একজন তরুণ চিত্রশিল্পীকে ঘিরে। যিনি শৈশবে ট্রেন দুর্ঘটনায় হারিয়েছেন পরিবারের সদস্যদের। এ কারণে তিনি জানতে পারেননি তার বাবা-মা কে কিংবা কোন ধর্মের মানুষ। বড় হয়েছেন শিশু আশ্রমে।

চিত্রকর হিসেবে তিনি পেয়েছেন খ্যাতি। এর মধ্যে একজন ধনীর দুলালি তার আঁকায় মুগ্ধ হয়ে প্রেমে পড়েন। বিয়ের জন্য পারিবারিকভাবে প্রস্তাব দেওয়া হয় এই শিল্পীকে। কিন্তু তিনি সাফ জানিয়ে দেন, তাকে দিয়ে সেটা সম্ভব নয়। এরপর তার চিকিৎসকের মাধ্যমে জানা যায়, তিনি আসলে একটি হরমোনজনিত বিরল জটিলতায় ভুগছেন।তিনি দেখতে পুরুষের মতো হলেও মানসিকভাবে তিনি একজন নারী।

এমন গল্পে নির্মিত নাটকটি দেখার পর থেকেই শুরু হয় সমালোচনা। নাটকের মাধ্যমে ‘ট্রান্সজেন্ডার সংস্কৃতি’ প্রমোট করার অভিযোগ এনে দেওয়া হয় বয়কটের ডাক। অবস্থা বেগতিক দেখে ১৬ এপ্রিল ইউটিউব থেকে সরিয়ে নেওয়া হয় নাটকটি।



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top