বাঘায় প্রতারক রাব্বিকে গ্রেফতারের পর অনেকেই আত্মগোপনে

বাঘা প্রতিনিধি | প্রকাশিত: ১ মে ২০২১ ২০:৪৬; আপডেট: ৬ মে ২০২১ ২১:১০

ফাইল ছবি

রাজশাহীর বাঘায় পুলিশের মহা-পরিদর্শক (আইজিপি) সোর্স দাবি করা রাব্বি হাসানকে বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেফতার করে পুলিশ। তারপর থেকে অনেকেই এখন ভীত ও আত্মগোপনে রয়েছেন।

রাব্বির মোবাইল ফোন জব্দ করার পর বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে নানা তথ্য। ইতোমধ্যে তার সাথে সম্পৃক্তদের অনেকেই ভীত এবং আত্মগোপনে রয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার রাতে আলোচিত এই রাব্বি হাসানকে গ্রেফতার করে বাঘা থানা পুলিশ। তার বাড়ি উপজেলার চক নারায়নপুর গ্রামে। তার নামে বাঘা সহ বিভিন্ন থানায় মাদক, নারী নির্যাতন ও চাঁদাবাজিসহ ৭টি মামলা রয়েছে। তিনি এ এলাকায় ইমো হ্যাকারের সাথে সম্পৃক্ত বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেন। এর আগে তিনি পুলিশের তথাকথিত সোর্স হিসাবে এলাকায় পরিচিতি লাভ করেন। তার এসব কর্মকান্ডে বিব্রত ও চিন্তিত এলাকার সুধী মহল।

৪ এপ্রিল রাব্বি হাসানসহ তার তিন সহযোগীকে মাদকসহ উপজেলার সুলতানপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ নিয়ে বিভিন্ন গমমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ঘটনার ১৫ দিন পর হাজত থেকে বেরিয়ে আসে রাব্বি। এরপর আবারও এলাকায় দাপিয়ে বেড়াতে শুরু করে। এ নিয়ে আরো একটি সংবাদ প্রকাশ করেন বাঘার সাংবাদিকেরা।
এর পর থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঐ সাংবাদিকের নামে মিথ্যা এবং অসত্য কথা লিখে তার মানক্ষুন্ন করার চেষ্টায় লিপ্ত হয় রাব্বি হাসান ও তার সহযোগীরা। এ নিয়ে রাব্বির বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন বাঘার এক সাংবাদিক। তারপর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেন।

বাঘা থানা সূত্রে জানা যায়, রাব্বি হাসান নিজেকে পুলিশের আইজিপি সহ অন্যান্য বড়-বড় পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে তার ব্যক্তিগত পরিচয় এবং সুখ্যাতি রয়েছে বলে এলাকার বিভিন্ন মানুষের সাথে প্রতারণা করে আসছিলেন। 

বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, রাব্বিকে গ্রেফতার ও তার মোবাইল ফোন জব্দ করার পর আমরা বেশ কিছু তথ্য পেয়েছি। তদন্তের সার্থে এই মুহুর্তে বলা সম্ভব হচ্ছে না। তবে রাব্বির সাথে সম্পৃক্তদের অনেকেই এখন ভীত-তটস্থ এবং আত্মগোপনে রয়েছেন বলে জানান ওসি।

 

 

এসকে



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top